Monday, October 31, 2016

Dashabhuja Temple, Dashabhujatala, Barasat, Chandannagar, Hooghly

শ্রীশ্রী দশভুজা  মন্দির,  দশভুজাতলা,  বারাসাত,  চন্দননগর,  হুগলি 

                                                       শ্যামল  কুমার  ঘোষ 

            হাওড়া-ব্যাণ্ডেল  রেলপথে  চন্দননগর  ত্রয়োদশতম  রেলস্টেশন।  রেলপথে  হাওড়া  থেকে  দূরত্ব  ৩২.৬  কিমি।  চন্দননগরের  বারাসাতের  দশভুজাতলায়  দেবী  দশভুজা  দুর্গার  নামানুসারে  দশভুজা  মন্দির  অবস্থিত।  মন্দিরটি  চন্দননগরে  অবস্থিত  হলেও  চন্দননগরের  আগের  স্টেশন  মানকুণ্ড  স্টেশন  থেকে  কাছে। 

            উচ্চ  ভিত্তিবেদির  উপর  প্রতিষ্ঠিত,  ত্রিখিলানযুক্ত  এই  আটচালা  মন্দিরের  সম্মুখভাগ  একদা  টেরাকোটা  অলংকরণে  অলংকৃত  ছিল।  কিন্তু  লাল  রঙের  প্রলেপে  সেই  টেরাকোটা  সৌন্দর্যের  সামান্যই  আজ  অবশিষ্ট  আছে।

            আটচালা  শৈলীর  মন্দিরের  বৈশিষ্ট  চালের  কমনীয়  বক্রাকৃতি,  দৈর্ঘ্য-প্রস্থ  ও  উচ্চতার  মধ্যে  সামঞ্জস্য  বিধান  এবং  প্রথম  চারচালার  সঙ্গে  সমতা  রক্ষা  করে  দ্বিতীয়  চারচালার  গঠন।  এই  তিনটি  স্থাপত্য  বৈশিষ্ট  দশভুজা  মন্দিরে  বিদ্যমান।  কিন্তু  মন্দিরের  সামনে,  প্রায়  মন্দির  সংলগ্ন  করে  একটি  নাটমন্দির  নির্মাণ  করায়  মন্দিরের  সামনের  দিকটা  ঢাকা  পরে  গেছে।  ফলে  মন্দিরটির  সৌন্দর্য  অনেকটাই  নষ্ট  হয়েছে। 

            মন্দিরের  উচ্চতা  প্রায়  ষাট  ফুট।  পশ্চিমমুখী।  তবে  দক্ষিণ  দিকেও  একটি  প্রবেশ  পথ  আছে।  কোন  প্রতিষ্ঠাফলক  না  থাকায়  মন্দির  নির্মাণের  তারিখ  সঠিক  ভাবে  বলা  যায়  না।  সম্ভবত  অষ্টাদশ  শতকের  শেষের  দিকে  মন্দিরটি  নির্মিত।
       
            মন্দিরে  দশভুজা  দুর্গার  অষ্টধাতু  নির্মিত  মূর্তি  নিত্য  পূজিত।  খুবই  ছোট  মূর্তি।  মন্দিরে  রাধাকৃষ্ণের  বিগ্রহও  দেবী  দশভূজার  সঙ্গে  নিত্য  পূজিত  হন।  মন্দির  প্রাঙ্গণে  একটি  দুর্গা  দালান  আছে। 

            মন্দিরের  চূড়ায়  একটি গাছ  জন্মেছে।  গাছটি  মন্দিবের  কিছুটা  ক্ষতি  করেছে।  এখনই  ব্যবস্থা  না  নিলে  ভবিষ্যতে মন্দিরটির  আরো  ক্ষতি  হওয়ার  আশঙ্খা  থাকছে। 

নাটমন্দিরসহ  শ্রীশ্রী দশভুজা  মন্দির 

শ্রীশ্রী দশভুজা  মন্দির

মন্দিরের  সামনে  ত্রিখিলান  বিন্যাস 

খিলানের  উপরের  টেরাকোটা  কাজ - রামরাবনের  যুদ্ধ 

শ্রীশ্রী  দশভুজা  মাতা  বিগ্রহ 

রাধাকৃষ্ণ  বিগ্রহ 


         সহায়ক  গ্রন্থ :
                     ১)  হুগলি  জেলার  দেব  দেউল : সুধীর  কুমার  মিত্র  
  

Saturday, October 29, 2016

Nandadulal Temple, Chandannagar, Hooghly

      শ্রীশ্রী নন্দদুলাল  মন্দির,  চন্দননগর,  হুগলি 

                     শ্যামল  কুমার  ঘোষ 

            হাওড়া-ব্যাণ্ডেল  রেলপথে  চন্দননগর  ত্রয়োদশতম  রেলস্টেশন।  রেলপথে  হাওড়া  থেকে  দূরত্ব  ৩২.৬  কিমি।  চন্দননগরের  লালবাগান  অঞ্চলে  শ্রীদুর্গা  ছবিঘরের  কাছে  নন্দদুলাল  মন্দির  বিখ্যাত।  মন্দিরটি  ১১৪৬  বঙ্গাব্দে ( ১৭৩৯  খ্রীষ্টাব্দে )  চন্দননগরের  তদানীন্তন  ফরাসি  সরকারের  দেওয়ান  ইন্দ্রনারায়ণ  চৌধুরী  প্রতিষ্ঠা  করেন

            খ্রিস্টীয়  সপ্তদশ  শতাব্দীর  শেষভাগে  তিনি  ও  তাঁর  জ্যেষ্ঠ  ভ্রাতা  রাজারাম  যশোহরের  সর্বরাজপুর  গ্রাম  থেকে  তাঁদের  বিধবা  মায়ের  সঙ্গে  দশ/ বার  বছর  বয়েসে   চন্দননগরে  আসেন। লেখাপড়া  শিখে  ফরাসি  কম্পানির  অধীনে  হিসাবরক্ষকের  চাকরি  নেন।  পরে  ব্যবসা  শুরু  করেন। ফরাসিদের  তিনি  খাদ্য  ও  বস্ত্র  সরবরাহ  করে  বিপুল  সম্পদের  অধিকারী  হন।  ১৭৫৬ খ্রিস্টাব্দে  তিনি  মারা  যান।  তিনি  কৃষ্ণনগরের  রাজা  কৃষ্ণচন্দ্রের  বন্ধু  ছিলেন  এবং  প্রয়োজনে  কৃষ্ণচন্দ্রকে  টাকা ধার  দিতেন।  তাঁরই  সুপারিশে  কৃষ্ণচন্দ্র  রায়  গুনাকর  ভারতচন্দ্রকে  তাঁর  সভায়  স্থান  দেন।  ১৭৫৬  খ্রিস্টাব্দে  ইংল্যাণ্ড  ও  ফ্রান্সের  মধ্যে  সপ্তবর্ষের  যুদ্ধ  শুরু  হলে  ক্লাইভ জলপথে  ও  স্থলপথে  চন্দননগর  আক্রমণ  করেন  এবং  ধ্বংস  করেন।  চন্দননগর  অবরোধের  সময়  ইংরেজ  সৈন্য  ইন্দ্রনারায়ণের  বাসভবন  লুণ্ঠন  করে  তখনকার  দিনে ৬৫  লক্ষ  টাকা  মূল্যের  নগদ  সোনার  টাকা  ও  অলংকার  নিয়ে  যায়।  ক্লাইভের  গোলায়  ইন্দ্রনারায়ণের  প্রাসাদসম  বাসভবন  চূর্ণ  হয়।  ইন্দ্রনারায়ণের  বাসভবন  নন্দদুলাল  মন্দিরের  কিছুটা  উত্তরে  ছিল।  একটি  গোলা  ছিটকে  নন্দদুলাল  মন্দিরের  পিছনে  এসে  লাগে।  মন্দিরের  নিচে  একটি  গুপ্তকক্ষ  আছে।  কথিত  আছে,  ওখানেও  ধন-দৌলত  মজুত  ছিল।  ক্লাইভের  সৈন্য  তাও  লুট  করে।  নন্দদুলাল  বিগ্রহের  ভেতর  সোনা  লুকানো  আছে  ভেবে  বিগ্রহ  ভেঙে  ফেলে  মন্দিরের  পাশের  পুকুরে  ফেলে  দেয়।  ( অন্য  মতে,  বর্গীর  হাঙ্গামার  সময়  বিগ্রহটি  ভাঙে। )  আসল  মূর্তিটির  পায়ের  ভাঙা  অংশ  চন্দননগরের  ফ্রেঞ্চ  ইনস্টিটিউট  বা  চন্দননগর  মিউজিয়াম -এ  রক্ষিত  আছে।  

            নন্দদুলালের  মন্দিরটি  মাঝারি  উঁচু  ভিত্তি  বেদির  উপর  স্থাপিত  সমতল  ছাদবিশিষ্ট,  দক্ষিণমুখী  দালান।  দৈর্ঘ্যে  ৫১  ফুট  ৯ ইঞ্চি  এবং  প্রস্থে  ১১  ফুট।  মন্দিরের  সামনে  এক  বাংলা  ধরনের  জগমোহন,  দৈর্ঘ্যে  মন্দিরের  দৈর্ঘ্যের  সমান,  প্রস্থে  ১৪  ফুট  ২  ইঞ্চি।  একবাংলার  সংলগ্ন  দালান  থাকায়  মন্দিরের  স্থায়িত্ব  বৃদ্ধি  পেয়েছে। একবাংলাটির ( দোচালা )  উচ্চতা  মূল  মন্দিরের  চেয়ে  বেশি।  একবাংলাটি  পাঁচ  খিলান  বিশিষ্ট,  দুটি  খিলান  ভরাটকরা।  একবাংলা  জগমোহন  দালানরীতির  গর্ভগৃহকে  এমন  ভাবে  আচ্ছাদন  করে  রেখেছে  যে  সামনে  দাঁড়ালে  মন্দিরটি  এক  বাংলা-ই  মনে  হয়।  মন্দিরটির  সামনে  ও  পশ্চিমদিকের  দেওয়ালে  পোড়ামাটির  কয়েকটি  ছোট  ছোট  ফুল  ছাড়া  অন্য  কোন  কাজ  নেই।  মন্দিরে  একটি  পোড়ামাটির  প্রতিষ্ঠাফলক  আছে।  পরে  আরো  একটি  শ্বেতপাথরের  ফলক  লাগানো  হয়েছে।  সুধীর  কুমার  মিত্র  তাঁর  'হুগলি  জেলার  দেব  দেউল'  গ্রন্থে  লিখেছেন  যে  আগে  এই  মন্দির  পোড়ামাটির  অলংকরণে  অলংকৃত  ছিল।  সংস্কারের  সময়  বহু  লোনা  লাগা  ফলক  খসিয়ে  ফেলা  হয়েছে।  কিন্তু  সংস্কারের  আগের  মন্দিরের  যে  ছবিটি  আমি  তপন  কুমার  চ্যাটার্জীর  কাছ  থেকে  পেয়েছি  তাতে  দেখছি  সংস্কারের  আগের  ও  পরের  টেরাকোটা  অলংকরণের  কোন  পার্থক্য  নেই।  আগে  মন্দিরে  ওঠার  সিঁড়ি  এক  পাশে  ছিল।  এখন  মাঝখানে  হয়েছে।  

            মন্দিরে  শ্রীশ্রী  নন্দদুলাল  জিউর  বিগ্রহ  নিত্য  পূজিত।  মন্দির  সংস্কারের  পরেও  বহুদিন  মন্দিরে  কোন  বিগ্রহ  ছিল  না।  মন্দিরে  পুরানো  বিগ্রহের  ছবিকেই পূজা  করা  হত।  পরে  ২০০৫  খ্রিস্টাব্দে  ( ১০ ই  ভাদ্র,  ১৪১২,  জন্মাষ্টমী )  শঙ্কর  সেবক  বড়ালের  স্মৃতিতে  তাঁর  স্ত্রী  দুর্গারানী  বড়াল  ও  তাঁর  পুত্রকন্যাগণ  প্রদত্ত  নন্দদুলালের  বিগ্রহ  প্রতিষ্ঠা  করা  হয়।  পুরানো  বিগ্রহের  ছবিটি  বর্তমান  বিগ্রহের  পাশে  রাখা  আছে।  মন্দিরটি  সম্বন্ধে  তথ্য  দিয়ে  সহায়তা  করেছেন  নন্দদুলাল  মন্দির  কমিটির বর্তমান ( ২০১৬) সভাপতি  তপনকুমার  চ্যাটার্জী। )      
  


নন্দদুলালের  বর্তমান মন্দির 

সংস্কারের  আগের  মন্দির  (  তপন  কুমার  চ্যাটার্জী' র  কাছ  থেকে  প্রাপ্ত )

নন্দদুলাল  মন্দির ( পশ্চিম  দিক  থেকে  তোলা )

মন্দিরের  সামনের  বিন্যাস 

গর্ভগৃহের  সামনের  বিন্যাস 

টেরাকোটার  ফুল  ও  ফলক 

প্রতিষ্ঠাফলক 

নন্দদুলাল  বিগ্রহ 

উপরে  নন্দদুলালের  বিছানা, নিচে  গুপ্তঘরের  দরজা 

গুপ্তঘরের  দরজা 

            উপরোক্ত  মন্দিরে  যেতে  হলে  হাওড়া  থেকে  পূর্বরেলের  মেন  লাইনের  লোকালে  উঠুন।  নামুন  চন্দননগর  স্টেশনে।  স্টেশনের  পূর্ব  দিক  থেকে  অটো   বা  টোটোতে  উঠে  পৌঁছে  যান  মন্দিরে।  জি. টি.  রোড  দিয়ে  গাড়িতেও  যেতে  পারেন। 

 সহায়ক  গ্রন্থ : 
                 ১)  হুগলি  জেলার  পুরাকীর্তি : নরেন্দ্রনাথ  ভট্টাচার্য 

Annapurna Temple, Babubazar, Telenipara, Bhadreswar, Hooghly

শ্রীশ্রী অন্নপূর্ণা  মন্দির, বাবুবাজার, তেলেনিপাড়া,  ভদ্রেশ্বর,  হুগলি 

                                                                                 শ্যামল  কুমার  ঘোষ 

             হাওড়া-ব্যাণ্ডেল  রেলপথে  ভদ্রেশ্বর  একাদশতম  রেলস্টেশন।  রেলপথে  হাওড়া  থেকে  দূরত্ব  ২৮  কিমি।  ভদ্রেশ্বরের  তেলেনিপাড়ার বাবুবাজারের  ফেরিঘাট  স্ট্রীটে  অন্নপূর্ণা  মন্দির  অবস্থিত।  মন্দিরটি  স্থানীয়  জমিদার  বৈদ্যনাথ  বন্দোপাধ্যায়  বাংলা  ১২০৮  সালে  ফাল্গুনী  পূর্ণিমায়  প্রতিষ্ঠা  করেন।  অল্প  উঁচু  ভিত্তিবেদির  উপর  স্থাপিত,  বিশালায়তন,  দক্ষিণমুখী,  নবরত্ন  মন্দির।  নবরত্ন  মন্দিরের  ছাদের  গঠনে  বক্রতা  না  এনে  সমতল  করায়  বিশালায়তন  এই  মন্দিরের  গঠনে  সার্বিক  লালিত্য  অনেকটা  ক্ষুন্ন  হয়েছে।  নবরত্নটির  প্রথম  তলের  চার  কোণে  চারটি  শিখর  এবং  দ্বিতলের  চার  কোণে  চারটি  প্রথম  তলের  চেয়ে  অপেক্ষাকৃত  ছোট  শিখর  আছে।  তাদের  মাঝখানে  মূল  রত্নটি  অবস্থিত।  দ্বিতীয়  তলের  কক্ষটিতে  বঙ্গীয়  স্থাপত্য-রীতি  অনুসারে  তিনটি  খিলানের  জন্য  দূর  থেকে  মন্দিরটিকে  গাম্ভীর্যমণ্ডিত  মনে  হয়।  মন্দিরের  সম্মুখভাগে  পত্রাকৃতি  ত্রিখিলানের  পরিবর্তে  ইউরোপীয়  স্থাপত্যরীতি  অনুসারে  স্তম্ভের  ব্যবহার  করা  হয়েছে।  মন্দিরের জগমোহনটি  ত্রিখিলান।   

             গর্ভগৃহে  কাঠের  সিংহাসনে  অষ্টধাতুর  মা  অন্নপূর্ণা  উপবিষ্টা।  অন্নদানে  রতা  মাতৃমূর্তি।  তাঁর  ডান  হাতে অন্নদান  করার  হাতা  এবং  বাঁ  হাতে  অন্নপাত্র।  দেবীর  ডানপাশে  রুপোর  তৈরী  মহাদেব,  বাঁ  হাতে  শিঙা  ও  ডমরু  এবং  ডান  হাতে  ভিক্ষাপাত্র।  এ  ছাড়া  সিংহাসনে  আছেন  নারায়ণ-লক্ষ্মী-সরস্বতী ও  নারায়ণ  শিলা।  মন্দির  প্রাঙ্গণে  তিনটি  ঘরে  তিনটি  শিবলিঙ্গ  প্রতিষ্ঠিত। দেবীর  তন্ত্র  মতে  পুজো  হয়।  দেবীকে  ভোগে  প্রতিদিন  মাছ  দেওয়া  হয়।  আগে  মোষ  বলি  দেওয়া  হত।  এখন  কোন  পশু  বলি  দেওয়া  হয়  না।

             দেবীর  নিত্য  পূজা  ছাড়াও  চৈত্র  মাসে  অন্নপূর্ণা  পুজোর  সময়  বিশেষ  পূজা  হয়।  আর  একটি  উল্লেখযোগ্য,  অক্ষয়  তৃতীয়ার  অনুষ্ঠান।  ওই  দিন  দেবী  রথে  চড়ে  পল্লীবাসীদের  পুজো  নিতে  নিতে  গঙ্গার  ঘাটে  যান  এবং  সেখানে  অপরাহ্ন  পর্যন্ত  অবস্থান  করেন।  সেখানে  বিশেষ  পূজা  ও  হোম  হয়।  বিকাল  বেলায়  মন্দিরের  লক্ষ্মী-নারায়ণকে  সঙ্গে  নিয়ে  সবাই  মিলে  গান গাইতে  গাইতে  সেখানে  যান  এবং  দেবীকে  ফিরিয়ে  নিয়ে  আসেন।  এই  উপলক্ষে  মন্দিরের  কাছে  এক  বিরাট  মেলা  বসে।  গানটি  হল : 

                     আনতে  শিব  অন্নপূর্ণা        চল  সবে  যাই  গো  ত্বরা,
                     অবসান  হল  দিবা,             উচিত  নয়  বিলম্ব  করা।। 
                     তৃতীয়ার  উপলক্ষে,                 হর  গৌরী  অন্তরীক্ষে,
                     রথেতে  গঙ্গা  সমক্ষে           বিরাজিছেন  মনোহরা।।
                     সত্বর  পদ  সঞ্চারে,              চল  যাই  জাহ্নবী  তীরে,
                     বুঝি  মা  রেখেছেন  হরে           হয়ে  বিরহ  কাতরা।। 
                     ত্যজি  দম্ভ  গর্বমদ,              হেরিগে  সেই  অভয়পদ,
                     যে  পদ  সম্পদপ্রদ                   সর্বাপদ  নাশ  করা।।  

( গানটির  কথা  ও  সুর -  জীতেন্দ্র  নাথ  বন্দোপাধ্যায় ( কালোবাবু ),  রাগিনী  মিশ্র  বাগেশ্রী,  তাল  ঝাঁপতাল। ) 

             মন্দির  প্রাঙ্গনে  প্রতি  বছর  দূর্গা  পূজা,  কালী  পূজা  ও  সরস্বতী  পূজা  অনুষ্ঠিত  হয়।  মন্দিরের দেবসেবা  বন্দোপাধ্যায়  বংশের  সকলে  পালাক্রমে  করে  থাকেন।  মন্দিরের  বর্তমান (২০১৬ )  পুরোহিত  অক্ষয়  বন্দোপাধ্যায়।  

  
শ্রীশ্রী অন্নপূর্ণা  মন্দির - ১

শ্রীশ্রী অন্নপূর্ণা  মন্দির - ২

জগমোহনের  ত্রিখিলান  বিন্যাস 

তিনটি  শিবলিঙ্গের  একটি 

লক্ষ্মী-নারায়ণ-সরস্বতী  বিগ্রহ 

অন্নপূর্ণা  ও  মহাদেব  মূর্তি - ১

অন্নপূর্ণা  ও  মহাদেব  মূর্তি - ২
    
মা  অন্নপূর্ণা  ও  বাবা  ভোলানাথ  ( মন্দির  থেকে  প্রাপ্ত )  

             উপরোক্ত  মন্দিরে  যেতে  হলে  হাওড়া  থেকে  পূর্বরেলের   মেন  লাইনের  লোকালে  উঠুন।  নামুন  ভদ্রেশ্বর  স্টেশনে।  স্টেশনের  পূর্ব  দিক  থেকে  অটো   রিকশায়  উঠে  পৌঁছে  যান  বাবুবাজার।  সেখান  থেকে  টোটোতে  বা  হেঁটে  পৌঁছে  যান  মন্দিরে।  অথবা,  শিয়ালদহ  থেকে  মেন  লাইনের  লোকালে  উঠুন।  নামুন  শ্যামনগর।  গঙ্গার  ঘাট  থেকে  তেলেনিপাড়ার  ফেরি  নৌকায়  উঠে  তেলেনিপাড়ার  ঘাটে  নামুন।  সেখান  থেকে  কাছেই  মন্দির।  জি. টি.  রোড  দিয়ে  গাড়িতেও  যেতে  পারেন। 


 সহায়ক  গ্রন্থ :

                 ১)  হুগলি  জেলার  দেব  দেউল :  সুধীর  কুমার  মিত্র 

Thursday, October 20, 2016

Sarbamangala temple, Sheoraphuli Rajbari Complex,Sheoraphuli,Hooghly

শ্রীশ্রী সর্বমঙ্গলা  মন্দির,  শেওড়াফুলি  রাজবাড়ি  চত্বর ,  শেওড়াফুলি,  হুগলি 

শ্যামল  কুমার  ঘোষ 

            হাওড়া-ব্যাণ্ডেল  বা  হাওড়া-তারকেশ্বর  রেলপথের  নবম   স্টেশন  শেওড়াফুলি।  হাওড়া  থেকে  দূরত্ব  ২২  কিমি।   শেওড়াফুলি  রেলস্টেশনের  পশ্চিম  দিকের  কিছুটা  দূরে,  সুরেন্দ্রনাথ  বিদ্যানিকেতন  স্কুলের  পাশে  শেওড়াফুলি  রাজবাড়ি  অবস্থিত।  শেওড়াফুলি রাজবংশ  বাঁশবেড়িয়া  রাজবংশের  আর  এক  শাখা।  বাংলার  প্রাচীন  রাজবংশগুলির  মধ্যে  এই  রাজবংশ  অন্যতম।  এঁরা  উত্তররাঢ়ীয়  কায়স্থ ( দত্ত )।  আকবর  বাদশায়ের  আমল  থেকে  রায়,  মজুমদার  ইত্যাদি  উপাধি  ভোগ  করে  আসছেন।  আনুমানিক  ষোড়শ  শতাব্দীর  মাঝামাঝি,  এই  বংশের  দ্বারকানাথ  বর্ধমান  জেলার  পাটুলি  গ্রামে  এসে  বসবাস  শুরু  করেন।  দ্বারকানাথের  পৌত্র  সহস্রাক্ষ  এবং  সহস্রাক্ষের  পৌত্র  রাঘব  ( রাঘবেন্দ্র )  দত্ত।  রাঘবের  দুই  পুত্র,  রামেশ্বর  ও  বাসুদেব।  তাঁদের  সময়  পৈতৃক  সম্পত্তি  ভাগ  হয়ে  যায়।  অগ্রজ  রামেশ্বর  পাটুলি  ত্যাগ  করে  বাঁশবেড়িয়ায়  এসে  স্থায়ীভাবে  বসবাস  করতে  শুরু  করেন।  বাসুদেব  পাটুলিতে  থেকে  যান  এবং  জমিদারি  তদারকি  করার  সুবিধার্থে  শেওড়াফুলিতে  অস্থায়ীভাবে  বাস  করতে  থাকেন।  বাসুদেবের  পুত্র   মনোহর   শেওড়াফুলি  রাজবাড়িতে  পাকাপাকি  ভাবে  বাস  শুরু  করেন।  তাই  মনোহরকে  শেওড়াফুলি  রাজবংশের প্রতিষ্ঠাতা  বলা যায়। 
  
            মনোহর  রায়  বহু  দেবদেবীর  বিগ্রহ  প্রতিষ্ঠা  করেন।  বাংলা  ১১৪১  সালের  ১৫ ই   জ্যৈষ্ঠ  ( ১৭৩৪  খ্রীষ্টাব্দে )  তিনি  রাজবাড়িতে   অষ্টধাতুর  শ্রীশ্রী  সর্বমঙ্গলা  দেবীর  বিগ্রহ  প্রতিষ্ঠা  করেন  এবং তাঁর  পূজা  নির্বাহের  জন্য  বহু  সম্পত্তি  দেবোত্তর  করে  দেন।   সর্বমঙ্গলার  বর্তমান  মন্দিরটি  অনুচ্চ  ভিত্তিবেদির  উপর  প্রতিষ্ঠিত,  দক্ষিণমুখী,  একটি  দালান।  মন্দিরে  শ্রীশ্রী সর্বমঙ্গলার  নিত্য  পূজা  ছাড়াও  দুর্গা  পূজার  সময়  বিশেষ  পূজা  অনুষ্ঠিত হয়। 

            এই  বিগ্রহ  প্রতিষ্ঠার  আগে  তাঁর  পিতা  বাসুদেব  রায়  এই  বাড়িতে  শ্রীশ্রী লক্ষ্মীজনার্দন  বিগ্রহের  প্রতিষ্টা  করেন।  মন্দিরে  লক্ষ্মী-জনার্দন  ছাড়াও  গোবিন্দহরি-রাধিকা  ও  বটকৃষ্ণ  নারায়ণ  শিলাও  নিত্য  পূজিত।  

            রাজা  মনোহর  রায়  রাজ  বাড়িতে  সর্বমঙ্গলার  প্রতিষ্ঠা  ছাড়াও  আরও  অনেক  বিগ্রহ  প্রতিষ্ঠা  ও  সেবামূলক  কাজের  সঙ্গে  যুক্ত  ছিলেন।  মাহেশে  শ্রীশ্রীজগন্নাথ  দেবের  সেবা  পরিচালনার  জন্য  তিনি  জগন্নাথপুর  নামক  পল্লী  দেবোত্তর  করে  দেন।  সেই  জন্য  স্নানযাত্রা  উপলক্ষে  শেওড়াফুলি  রাজবাড়ি  থেকে  'রাজছত্র'  না  পৌঁছানো  পর্যন্ত  ঠাকুরের  স্নান  আরাম্ভ  হয়  না।  সেই  প্রথা  আজও   চলে  আসছে।  বৈদ্যবাটিতে  তিনি  পিতামহ  রাজা  রাঘবেন্দ্র  রায়ের  স্মৃতিতে  রাঘবেশ্বর  শিবমন্দির  প্রতিষ্ঠা  করেন। উত্তরপাড়ার  ভদ্রকালী' তে  তিনি  ভদ্রকালী  মন্দির  নির্মাণ  করে  দেন। 
                        মন্দিরটি  সম্বন্ধে  জানতে  ক্লিক  করুন :         
                                  শ্রীশ্রী ভদ্রকালী  মন্দির
  
             ১১৫০ সালে  তিনি  পরলোক গমন  করলে  শুকদেব  সিংহ  একটি  "মনোহরাষ্টক"  রচনা  করেন।  তা  থেকে  জানা  যায়  যে  তিনি  প্রতিদিন  ভূমি  দান  করতেন।  ফলে  শেষ  জীবনে  এমন  অবস্থা  হয়ে  ছিল  যে  তাঁর  রাজ্যে  এমন  কোন  গ্রাম  ছিল  না  যার  অর্ধেক  তিনি  নিষ্কর  দান  করে  দেন  নি।    

            রাজা  মনোহরের  পুত্র  রাজা  রাজচন্দ্র  রায়  শ্রীপুরে  ( শ্রীরামপুরে )  'রামসীতা  মন্দির'  নির্মাণ  করে  তিন  শ'  বিঘা  জমি  জমি  দেবোত্তর  করে  দেন।  'শ্রীপুর'  বা  'শ্রীরাম'  থেকেই  'শ্রীরামপুর'  নামটি  উদ্ভূত  হয়েছে।  শ্রীরামপুরের  রামসীতা মন্দির সম্বন্ধে  জানতে  ক্লিক  করুন : 
                              রামসীতা  মন্দির,  শ্রীরামপুর 

             ভদ্রকালী ( উত্তরপাড়া ) দোলতলায়   তিনি  আর  একটি  রামসীতা'র  মন্দির  প্রাতিষ্ঠা করেন। মন্দিরটি  সম্বন্ধে  জানতে  ক্লিক  করুন :       রামসীতা মন্দির, দোলতলা,  ভদ্রকালী,  উত্তরপাড়া 

            রাজচন্দ্রের  পুত্র  রাজা  আনন্দচন্দ্র  রায়।  আনন্দচন্দ্রের  পুত্র  রাজা  হরিশ্চন্দ্র  রায়  শেওড়াফুলির  গঙ্গার  ধারে  শ্রী শ্রী  নিস্তারিণী  কালী  মাতার  মন্দির  ও  বিগ্রহ  প্রতিষ্টা  করেন।  মন্দিরটি  সম্বন্ধে  জানতে  ক্লিক  করুন :  শ্রীশ্রী  নিস্তারিণী  কালী মাতার  মন্দির,  শেওড়াফুলি। 

             গুপ্তিপাড়ার  শ্রীরামচন্দ্রের  মন্দিরও  তিনি  নির্মাণ  করে  দেন। মন্দিরটি  সম্বন্ধে  জানতে  ক্লিক  করুন : 
শ্রীরামচন্দ্রের  মন্দির,  গুপ্তিপাড়া,  হুগলি।  
            
            এ  ছাড়া  তিনি কলকাতায়  শ্রী চিত্তেশ্বরী  দেবীর  মন্দির  নির্মাণ  করেন  এবং ঠাকুরানির  সেবার  জন্য  বহু  জমি  দান  করেন।

            রাজা  হরিশচন্দ্রের  তিনটি  বিবাহ।  প্রথমা  রানি  সর্বমঙ্গলা  দেবীর  অপঘাতে  মৃত্যু  হয়।  অপর  দুই  রানি  হরসুন্দরী  দেবী  ও  রাধারাণী  ( অন্যমতে,  রাজধন  দেবী )  নিঃসন্তান  হাওয়ায়  যোগেন্দ্রচন্দ্র  ও  পূর্ণচন্দ্রকে  দত্তক  নেন।  এঁরা  যথাক্রমে  'বড়তরফ'  ও  'ছোটতরফ'  নামে  পরিচিত  হন।  বড়তরফের  রাজা  যোগেন্দ্রচন্দ্র  একজন  সুগায়ক  ছিলেন।  তাঁর  দুই  পুত্র -  ব্রজেন্দ্রচন্দ্র ( স্বল্পায়ু )  ও  গিরীন্দ্রচন্দ্র।  গিরীন্দ্রচন্দ্রের  একমাত্র  কন্যা  নিরুপমা  দেবী।  রাজা  গিরীন্দ্রচন্দ্রের  উত্তরাধিকারী  দৌহিত্র  নির্মলচন্দ্র  ঘোষ।  তাঁর  পাঁচ  পুত্র  -  অনিল,  সুনীল,  সলিল,  নিখিল  ও  সুশীল।  এঁরা  সকলেই  বাস  করতেন  রাজবাড়ির  বড়তরফের  অংশে।  সলিলচন্দ্র  রাজবাড়িতে  একটি  সংগীত-শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান  পরিচালনা  করতেন।   



শেওড়াফুলি  রাজবাড়ি 
রাজবাড়িতে  পঙ্খের  কাজ 
শ্রীশ্রী সর্বমঙ্গলা  মন্দির 
মন্দিরের  স্তম্ভে  বিভিন্ন  দেবদেবীর  মূর্তি 
দূর্গা  পুজো ২০১৬ -র  সময়  মন্দিরের  সামনের  সজ্জা 

শ্রীশ্রী  সর্বমঙ্গলা  মাতা - ১

শ্রীশ্রী  সর্বমঙ্গলা  মাতা - ২

গোবিন্দহরি  ও  অন্যান্য  বিগ্রহ 
গোবিন্দহরি  ও  রাধিকা  বিগ্রহ 
লক্ষ্মী  ও  জনার্দন  বিগ্রহ 

  সহায়ক  গ্রন্থাবলী :
             ১)  হুগলি  জেলার  ইতিহাস  ও  বঙ্গসমাজ ( ৩ য়  খণ্ড )  :  সুধীর  কুমার  মিত্র 
             ২)  পশ্চিমবঙ্গের  সংস্কৃতি  :  বিনয়  ঘোষ 
             ৩)  হুগলি  জেলার  পুরাকীর্তি  :  নরেন্দ্র  নাথ  ভট্টাচার্য 
             ৪)  বাংলার  খেতাবী  রাজরাজড়া :  বিমল  চন্দ্র  দত্ত 

                                                *****

Monday, October 17, 2016

Bhadrakali Temple, Ramsita Ghat Street, Doltala, Bhadrakali, Uttarpara, Hooghly

শ্রীশ্রীভদ্রকালী   মন্দির, রামসীতা  ঘাট  স্ট্রিট, দোলতলা,  ভদ্রকালী,  উত্তরপাড়া,  হুগলি 

                                                               শ্যামল  কুমার  ঘোষ 

            হাওড়া-ব্যাণ্ডেল  রেলপথে  উত্তরপাড়া  চতুর্থ  স্টেশন।  রেলপথে  হাওড়া  থেকে  দূরত্ব  ৯.৭  কিমি।  স্টেশন থেকে  পূর্ব  দিকে  এক  কিলোমিটার  দূরে  ভদ্রকালী  দোলতলায়  শ্রীশ্রীভদ্রকালীর  মন্দির  অবস্থিত।  মন্দিরটি  উঁচু  ভিত্তিবেদির  প্রতিষ্ঠিত,  দক্ষিণমুখী,  পিরামিড  আকৃতি  ছাদ  যুক্ত  একটি  ঘর  মাত্র।  সামনে  অলিন্দ।  মন্দিরের  মেঝেতে  শ্বেতপাথর  ও  বাহিরের   দেওয়ালে  পাথর  লাগানো।  মন্দিরটি  ১৭৩০  খ্রীষ্টাব্দে  নির্মিত।  বলা  বাহুল্য,  মন্দিরটির  নবীকরণ  হয়েছে।  কারণ  বর্তমান  মন্দিরটি  বেশি  পুরানো  নয়। 

            একটি  পুকুর  খোঁড়ার সময়  মন্দিরের  বিগ্রহটি  পাওয়া  যায়।  এক  সন্ন্যাসী  বিগ্রহটির  পূজা  করতেন।  সন্ন্যাসী  পরলোকগমন  করলে  রাজা  মনোহর  রায়  বর্তমান  স্থানে  একটি  মন্দির  নির্মাণ  করে  ভদ্রকালী  বিগ্রহটি   প্রতিষ্টা  করেন।  দেবীর  নামে  জায়গারটির  নাম  হয়  ভদ্রকালী।  অন্য  মতে,  বিগ্রহটি  পাওয়া  যায়  গঙ্গা  থেকে।  মন্দিরের  সামনে  একটি  ফলক  লাগানো  আছে।  

            কাল  পাথরের  চতুর্ভুজা  মূর্তি।  খুবই  ছোট  মূর্তি।  খালি  চোখে  খুব  কাছে  না  গেলে  বোঝা  যায়  না।  শিবের  শায়িত  দেহের  উপর  দেবী  উপবিষ্টা।  দেহ  সম্পুর্ণ  নিরাভরণ।  বাম  দিকের  উপরের  হাতে  খড়্গ  ও  নিচের  হাতে  নরমুণ্ড।  দক্ষিণের  দু  হাত  দিয়ে  বর  ও  অভয়  দান  করছেন।  পাথরের  মূর্তি  কিন্তু  সজীবতাপূর্ণ।  বিগ্রহ  নিত্য  পূজিত। 

            উপরোক্ত  মন্দিরে  যেতে  হলে  হাওড়া  থেকে  পূর্বরেলের   মেন  লাইনের  লোকালে  উঠুন।  নামুন  উত্তরপাড়া  স্টেশনে।  স্টেশনের পূর্ব  দিক  থেকে  রিকশায়  উঠে  পৌঁছে  যান  ভদ্রকালী  দোলতলার  মন্দিরে।  জি. টি.  রোড  দিয়ে  গাড়িতেও  যেতে  পারেন। 



শ্রীশ্রী ভদ্রকালী  মন্দির
মন্দিরে  লাগানো  ফলক 
শ্রীশ্রী ভদ্রকালী  মাতা - ১
শ্রীশ্রী ভদ্রকালী  মাতা - ২

           সহায়ক  গ্রন্থ :
                 ১)  হুগলি  জেলার  ইতিহাস  ও  বঙ্গসমাজ  ( ৩ য়  খণ্ড ):  সুধীর  কুমার  মিত্র 
                 ২)  পশ্চিম  বঙ্গ  ভ্রমণ  ও  দর্শন  :  ভূপতিরঞ্জন  দাস 
                ৩)  ভদ্রকালী  মন্দিরে  লাগানো  প্রস্তর  ফলক         

Nistarini Kali Temple, Sheoraphuli, Hooghly

          
   শ্রীশ্রী নিস্তারিণী  কালী  মন্দির,  শেওড়াফুলি,  হুগলি 
               শ্যামল  কুমার  ঘোষ 
            হাওড়া-ব্যাণ্ডেল  বা  হাওড়া-তারকেশ্বর  রেলপথের  নবম   স্টেশন  শেওড়াফুলি।  রেলপথে  হাওড়া  থেকে  দূরত্ব  ২২  কিমি।    শেওড়াফুলি  রেলস্টেশনের  পূর্ব  দিকে,  স্টেশনের  পাশে,  গঙ্গার  ধারে,  শ্রীশ্রী নিস্তারিণী  কালী  মন্দির  অবস্থিত।  পাশেই  শেওড়াফুলির  হাট।  শেওড়াফুলি  রাজবংশের  হরিশ্চন্দ্র  রায়  তাঁর  প্রথমা  স্ত্রী  সর্বমঙ্গলা  দেবীর  অপমৃত্যু  হওয়ায়  পণ্ডিতদের  বিধানানুসারে  অপঘাত  মৃত্যুর  হাত  থেকে  আত্মার  শান্তির  জন্য  ১৭৪৯  শকাব্দে  ( ১৮২৭  খ্রীষ্টাব্দে )  নিস্তারিণী  কালী  মন্দির  নির্মাণ  করেন  এবং  মন্দিরে  দেবী  কালিকার  মূর্তি  প্রতিষ্টা  করেন।  মন্দিরের  সামনের  দেওয়ালে  একটি  কাল  পাথরের  প্রতিষ্ঠা-ফলক  আছে।  পরে  শ্বেতপাথরের  আরও  একটি  ফলক  লাগানো  হয়েছে।   

             মন্দিরটি  অনুচ্চ  ভিত্তিবেদির  উপর  প্রতিষ্ঠিত,  একটি  সমতল  ছাদ  যুক্ত,  দক্ষিণমুখী  দালান।   বিশালাকার  এই  মন্দিরের  সামনের  দিকে  সাতটি  খিলান  এবং  পাশে  ( পূর্ব-পশ্চিমে )  পাঁচটি  খিলান।    খিলানগুলি  থামের  উপর  স্থাপিত।  এক  একটি  থাম  চারটি  সরু  সরু  গোল  গোল  থামের  সমাহারে  তৈরী।   মন্দিরের  চার  দিকে  ঢাকা  বারান্দা।  মন্দিরের  সামনে  একটি  নাটমন্দির  আছে।  কিন্তু  সেই  নাটমন্দির  এখন  পণ্যবিক্রেতাদের  দ্বারা  দখলিত।  মন্দিরে  কয়েকটি  ঘর।  সামনের  দিকের  মাঝের  ঘরটিতে  দেবী  নিস্তারিণী  ও  দু  পাশের  দুটি  ঘরে  দুটি  শ্বেত  পাথরের  শিবলিঙ্গ  প্রতিষ্ঠিত।  নিস্তারিণী  মায়ের  ঘরের  দুটি  প্রবেশ-দ্বার।  গর্ভগৃহের  সামনে  অলিন্দ।  শেওড়াফুলি  রাজবংশের  আদি  নিবাস  ছিল  বর্ধমান  জেলার  অন্তর্গত  পাটুলি-নারায়ণপুর।  সেখানে  রাজবংশের  প্রাচীন  কয়েকটি  মন্দির  ভেঙে  গেলে  সেই  সব  বিগ্রহ  এই  মন্দিরের  দুটি  ঘরে  এনে  রাখা  হয়।  পিছনের  দিকের  এক  পাশের  ঘরে  বর-চক্র-গদা-অভয়ধারী  মহাবিষ্ণু,  বৃষবাহন,  ভৈরব,  চতুর্ভুজা  মহালক্ষ্মী  ও  দশভুজা   দেবী  মূর্তি  এবং  অপর  পাশের  একটি  ঘরে  কৃষ্ণরায়  ও  বাল  গোপাল  মূর্তি  প্রতিষ্ঠিত।  সবগুলো  বিগ্রহই  নিত্য  পূজিত।   মন্দির  চত্বরে  ঠাকুরের  ভোগ  রান্নার  ঘরও  আছে।  মন্দির  এলাকা  খাবার,  শাঁখা,  নিত্য  ব্যবহার্য  টুকিটাকি  জিনিস  ও  পুজোর  সামগ্রীর  দোকানে  জমজমাট।  খাবার  দোকানে  তেলেভাজা,  জিলিপি  ও  শিঙাড়া  প্রভৃতির  প্রাধান্য।      

            নিস্তারিণী  কালী  দক্ষিণ  কালিকার  পাষাণময়ী  মূর্তি।  শিবের  উপর  দেবী  দণ্ডায়মানা।  দেবী  চতুর্ভূজা। দেবীর  বাম  দিকের  উপরের  হাতে  খড়্গ  ও  নিচের  হাতে  নরমুণ্ড  এবং  দক্ষিণের  দু  হাত  দিয়ে  বর  ও  অভয়  দান  করছেন।  একটি  বড়  পদ্মের  উপর  দেবীকে  স্থাপন  করা  হয়েছে।

            তখনও  দক্ষিণেশ্বরের  মন্দির  প্রতিষ্ঠা  হয় নি।  রানি  রাসমণি  একবার  বজরা  করে  এসে  পাশের  গঙ্গার  ঘাটে  নেমে  মন্দিরে  মাকে  দর্শন  করে  পুজো  দিয়ে  যান।

            সকাল  সাড়ে  পাঁচটা  থেকে  দুপুর  দেড়টা-দুটো  পর্যন্ত   মন্দির  খোলা  থাকে।  তারপর  মন্দির  বন্ধ  হয়।  আবার  বিকালে  মন্দির  খুলে  রাত  ন'টায়  মন্দির  বন্ধ  হয়।  প্রতি  অমাবস্যায়  মায়ের  বিশেষ  পূজা হয়।  কালী  পুজোর  অমাবস্যায়  মন্দিরে  মহাপুজো  অনুষ্ঠিত  হয়  এবং  বলা  বাহুল্য  ওই  দিন  মন্দিরে  খুবই  ভিড় হয়।
  
            শেওড়াফুলির  এই  দেবী  খুবই  জাগ্রতা।  মানুষের  বিশ্বাস,  দেবী  নিস্তারিণীকে  আরাধনা  করলে  দুঃখের  হাত  থেকে  নিস্তার  পেয়ে  সুখ,  সমৃদ্ধি  ও  শান্তি  লাভ  করা  যায়।  তাই  শুধু  স্থানীয়  বাসিন্দারাই  নয়,  দূরদূরান্তের  বহু  পুণ্য  লোভাতুর  আর্ত  নরনারীর  সমাগম  প্রতিদিন  মন্দির  প্রাঙ্গণে  হয়ে  থাকে।  কাছাকাছি  থেকে  যাঁরা  আসেন  তাঁদের  অনেকেই  পাশের  গঙ্গায়  স্নান করে  মায়ের  পুজো  দেন।  আর  যাঁরা  অনেক  দূর  থেকে  আসেন  তাঁরা  অনেকেই  পাশের  গঙ্গায়  স্নান  করে,  মায়ের  পুজো  দিয়ে,  উপবাস  ভঙ্গ  করে  বাড়ি  ফেরেন। 
  

গঙ্গার  ঘাটের  তোরণ-দ্বার 
শ্রীশ্রী নিস্তারিণী  মন্দির 
গর্ভগৃহের  সামনের  ঢাকা  বারান্দা 
দুটি  শিব  লিঙ্গের  একটি 
প্রতিষ্ঠা ফলক 
আর  একটি  ফলক 
পশ্চিম  দিকের  ঘরের  (পাটুলি  থেকে  আনা )  বিগ্রহ - ১
অষ্টভুজা  বিগ্রহ  (পাটুলি  থেকে  আনা )    
পশ্চিম  দিকের  ঘরের  (পাটুলি  থেকে  আনা )  বিগ্রহ - ২
পশ্চিম  দিকের  ঘরের  (পাটুলি  থেকে  আনা )  বিগ্রহ - ৩
ভৈরব  বিগ্রহ  (পাটুলি  থেকে  আনা )   
দশভুজা  বিগ্রহ  (পাটুলি  থেকে  আনা )   - ৪
কৃষ্ণরায়  ও  বালগোপাল  বিগ্রহ ( পাটুলি  থেকে  আনা ) 
শ্রীশ্রী নিস্তারিণী  মাতা - ১
শ্রীশ্রী নিস্তারিণী  মাতা - ২
শ্রীশ্রী নিস্তারিণী  মাতা - ৩

সহায়ক  গ্রন্থ :
            ১)  হুগলি  জেলার  দেব  দেউল :  সুধীর  কুমার  মিত্র