Friday, November 27, 2015

Radhakrishna Temple, Ula Birnagar, Nadia

             কৃষ্ণচন্দ্র  রায়  দেব  মন্দির, উলা  বীরনগর, নদিয়া

                                                শ্যামল  কুমার  ঘোষ

            শিয়ালদহ-কৃষ্ণনগর  রেলপথে  বীরনগর  একটি  স্টেশন ।  কলকাতা  থেকে  রেলপথে  দূরত্ব  ৮১.৬  কি. মি. ।  বীরনগর  স্টেশন  থেকে  ২  কি. মি.  পূর্ব  দিকে  উলার  মুস্থাফি  পাড়া ।  এই  পাড়ার  মিত্র  মুস্থাফিদের  রাধাকৃষ্ণের  জোড়বাংলা   মন্দিরটি   বিখ্যাত ।  মন্দিরটি  টেরাকোটা  অলংকরণে  অলংকৃত ।

            বীরনগরের  প্রাচীন  নাম  উলা ।  উলা  নামকরণ  সম্পর্কে  নানান  লোকশ্রুতি  প্রচলিত  আছে ।  উলুবন  পরিষ্কার  করে  প্রথম  বসতি  স্থাপিত  হয়  বলে  নাম  হয়  উলা ।  আবার  অনেকে  বলেন  এই  গ্রামের  প্রাচীন  ও  বিখ্যাত  দেবতা  উলাই  চণ্ডীর  নামানুসারে  নাম  হয়  উলা ।  এখানে  একসময়  গ্রামবাসীদের  চেষ্টায়  এক  দুর্ধর্ষ  ডাকাতদল  ধরা  পড়লে  ইংরেজ  সরকার  উলার  নতুন  নামকরণ  করেন  বীরনগর  অর্থাৎ  বীরদের  নগর । 

            উলার  প্রাচীন  জমিদার  মুস্তৌফি  বংশের  প্রতিষ্ঠাতা  রামেশ্বর  মিত্র  মুর্শিদকুলী  খাঁর  রাজত্বকালে  বাংলার  মুস্তৌফি (= নায়েব  কানুনগো ) পদে  নিযুক্ত  হন ।  তিনি  ১৬৯৪  খ্রীষ্টাব্দে  মুস্তাফি  পাড়ায়  তাঁর  বসতবাড়ির  কাছে  রাধাকৃষ্ণের  একটি  সুন্দর  জোড়বাংলা  মন্দির  নির্মাণ  করেন ।  দুটি  'দোচালা'  বা  'একবাংলা'  জোড়া  দিয়ে  এ  ধরণের  মন্দির  তৈরি  হয়  বলে  এই  স্থাপত্যশৈলীর  নাম  'জোড়বাংলা' ।  মন্দিরটির  সামনের  দিকে  পোড়ামাটির  প্রতিষ্ঠা-ফলকের  পাঠ  হল  :

                                           অঙ্গৈককালেন্দুমিতে 
                                           শকাব্দে  ১৬১৬  কায়স্থ
                                           কায়স্থহবেষ  ধর্ম্মঃ । 
                                          যো  নির্ম্মমে  শ্রীহরিযুগ্ম ধাম  
                                          শ্রীযুত  রামেশ্বরমিত্রদাস । 

              অর্থাৎ  ১৬১৬  শকাব্দে ( ১৬৯৪ খ্রীষ্টাব্দে )  কায়স্থকুলোদ্ভব   শ্রী  রামেশ্বর  মিত্র  শ্রীহরির  এই  যুগ্মগৃহ  নির্মাণ  করলেন ।  এখানে  'অঙ্গ' = ছয়,   'এক' = এক,  'কাল' = ছয়,  'ইন্দু' = এক  ধরে  অঙ্কের  বামাগতি  নিয়মানুসারে  ১৬১৬  শকাব্দ  হয়েছে ।  মন্দিরে  রাধাকৃষ্ণ  বিগ্রহ  নিত্যপূজিত ।  মন্দিরের  কৃষ্ণ  বিগ্রহটি  রামেশ্বর  মিত্র  প্রতিষ্ঠিত । রাধিকা  মূর্তিটি  কোন  এক  সময়ে  চুরি  গেলে  পুনরায়  অন্য  মূর্তি  প্রতিষ্ঠা  করা  হয় ।

            ভিত্তিবেদির  উপর  স্থাপিত,  পশ্চিমমুখী  এই  মন্দিরের  দৈর্ঘ্য,  প্রস্থ  ও  উচ্চতা  যথাক্রমে  ৬.৭  মি. ,  ৬.৭  মি. এবং  ৭.৬ মি. ।  প্রতিটি  দোচালার  প্রস্থ  ৩.৩ মি. । প্রথম  দোচালাটি  অলিন্দ  এবং  দ্বিতীয়  দোচালাটি  গর্ভগৃহ  হিসাবে  ব্যবহৃত  হয় । উৎকৃষ্ট  টেরাকোটা  অলংকারে  মন্দিরটি  অলংকৃত ।  পাদপীঠ  সংলগ্ন  দেওয়াল  থেকে  আরম্ভ  করে  সামনের  দিকের  প্রায়  সর্বত্রই  পোড়ামাটির  অলংকরণ  দেখা যায় ।  কারিগরি  নৈপুণ্যে  সেগুলি  নদিয়া  জেলার  টেরাকোটা  মন্দিরগুলির  মধ্যে  শ্রেষ্ঠ  নিদর্শনের  তুল্য  হলেও  অপটু  হাতের  সংস্কারে  ও  রঙের  প্রলেপে  তা  এখন  অনেকটাই  ম্লান ।  বাইরের  দেওয়ালে,  ভিত্তিবেদি-সংলগ্ন  দুটি  অনুভূমিক  সারির  নিচের  সারিতে  টেরাকোটায়  পালকিবাহিত  বাবু  ও  রক্ষকগণ,  নৌকাভ্রমণ,  মুঘল  যোদ্ধা,  বানিজ্যতরী,  মৃগয়া  প্রভৃতি  সামাজিক  চিত্র  ও  উপরের  সারিতে  একটানা  হংসশ্রেণী  উৎকীর্ণ  আছে ।  বাইরের  ত্রিখিলান  প্রবেশপথের  তিনদিক  ঘিরে  কুলুঙ্গিতে  নিবদ্ধ  এক  সারি  মূর্তি-ভাস্কর্যের  মধ্যে  কৃষ্ণলীলা,  রাম, লক্ষ্মণ,  ভরত,  শত্রুঘ্ন  ও  শিবদূর্গা  প্রভৃতি  পৌরাণিক  দেবদেবীই  প্রধান ।  বাঁ  দিকের  স্তম্ভের  গায়ে  কার্তিক-গনেশসহ  মহিষমর্দিণী  মূর্তিটি  সুন্দর ।  দেওয়ালের  বাকি  অংশে  ফুলকারি  নকশা  দ্বারা  অলংকৃত ।  গর্ভগৃহে ( দ্বিতীয়  দোচালা )  প্রবেশপথের  উপরেও  টেরাকোটার  কিছু  কাজ  আছে ।  সেখানে, খিলানশীর্ষের  দুপাশে  দুটি  লম্ফমান  সিংহ  দৃষ্টি-আকর্ষণী । 

            মিত্র  মুস্তাফিদের  কাঠের  তৈরি  কারুকার্যশোভিত  একটি  দুর্গামণ্ডপ  ছিল ।  শোনা  যায়  সেই  সময়  এই  দুর্গামণ্ডপটি  দেখার  জন্য  বাংলার  বিভিন্ন  স্থান  থেকে  অনেক  লোক  এখানে  হাজির  হত ।  অনেক  দিন  হল  সেটি  একপ্রকার  বিনষ্ট ।  শুধু  কাঠের  ওপর  খোদাই  করা  কয়েকটি  থাম  বা  কড়ি  ইঁটের  তৈরি  নতুন  দুর্গামণ্ডপে  রাখা  আছে ।  কীটপতঙ্গের অত্যাচারে  সেগুলিও  এখন  জীর্ণ-দীর্ণ ।
                        
            উপরোক্ত  মন্দিরে  যেতে  হলে  শিয়ালদহ  থেকে  লালগোলা  প্যাসেঞ্জার  বা  কৃষ্ণনগর  লোকালে  উঠুন ।  নামুন  বীরনগর  স্টেশনে ।  স্টেশনের  পূর্ব  দিক  থেকে  টোটো  বা  রিকশায়  উঠে  পৌঁছে  যান  মন্দিরে ।


জোড়বাংলা  মন্দির, উলা  বীরনগর 


মন্দিরের  সামনের  ত্রিখিলান  প্রবেশদ্বার 

মাঝের  খিলানের  টেরাকোটার  কাজ 

মন্দিরের  প্রতিষ্ঠা-ফলক 


 ভিত্তিবেদি-সংলগ্ন  টেরাকোটার  কাজ - ১

ভিত্তিবেদি-সংলগ্ন  টেরাকোটার  কাজ - ২

স্তম্ভমূলের  টেরাকোটার  কাজ -১

কুলুঙ্গিতে  নিবদ্ধ  ও  আশেপাশের  টেরাকোটার  কাজ - ১

কুলুঙ্গিতে  নিবদ্ধ  ও  আশেপাশের  টেরাকোটার  কাজ - ২

কুলুঙ্গিতে  নিবদ্ধ  ও  আশেপাশের  টেরাকোটার  কাজ - ৩

মন্দিরের  শিখর  দেশ 

গর্ভগৃহের  সামনের  খিলানের  কাজ 

মন্দিরের  বিগ্রহ - ১

মন্দিরের  বিগ্রহ  - ২

বিনষ্ট  দুর্গামণ্ডপের  কাঠের  উপর  কারুকার্যের  নমুনা 



সহায়ক  গ্রন্থাবলি  :
        ১.  বাংলার  মন্দির  স্থাপত্য  ও  ভাস্কর্য  :  প্রণব  রায় 
        ২.  নদিয়া  জেলার  পুরাকীর্তি মোহিত  রায়  (তথ্য-সংকলন  ও  গ্রন্থনা )
           
           

Thursday, November 26, 2015

Krishnaray Jiu Temple, Tehatta, Nadia

শ্রী শ্রী  কৃষ্ণরায়  জিউ  মন্দির, তেহট্ট, নদিয়া

 শ্যামল  কুমার  ঘোষ 

            শিয়ালদহ-কৃষ্ণনগর  রেলপথে  কৃষ্ণনগর  শেষ  স্টেশন । কলকাতা  থেকে  দূরত্ব  ৯৯ কি. মি. । কৃষ্ণনগর  থেকে  ৪৪  কি. মি.  উত্তরে  তেহট্ট ।  তেহট্টের  প্রাচীন  নাম  ত্রিহট্ট । এক  সময়ে  এই  অঞ্চলের  তিনটি  স্থানে  সপ্তাহে  দুদিন  করে  হাট  বসত ।  পরে  জনসাধারণের  সুবিধার্থে  জলঙ্গী  নদীর  পূর্ব  তীরে  এক  প্রশস্ত  জায়গায়  তিনটি  হাট  একত্র  হয়ে  বসতে  আরম্ভ  করে ।  স্থানটির  নাম  হয়  তেহাটা  বা  ত্রিহট্ট ।  পরে  নাম  হয়  তেহট্ট ।

            তেহট্টের  ঠাকুরপাড়ায়  কৃষ্ণরায়ের  'জোড়বাংলা '  টেরাকোটা  মন্দিরটি  উল্লেখযোগ্য ।  দুটি  'দোচালা'  বা  'একবাংলা'  জোড়া  দিয়ে  এ  ধরণের  মন্দির  তৈরি  হয়  বলে  এই  স্থাপত্য  শৈলীর  নাম  'জোড়বাংলা' ।  মন্দিরটি  ১৬০০  শকাব্দে  বা  ১৬৭৮  খ্রীষ্টাব্দে  নির্মিত ।  মন্দিরটির  দক্ষিণ  দিকের  দেওয়ালে  পোড়ামাটির  হরফে  উৎকীর্ণ  প্রতিষ্ঠা-ফলকের  পাঠ  হল 

                   ১৬০০  শাকে  শূন্যনভঃষড়িন্দুগণিতে  মেষগতে  ভাস্করে 
                   শ্রীগোবিন্দপদারবিন্দনিরতঃ  শ্রীরামদেব  মহান 
                   লক্ষ্মী যস্য  পদারবিন্দসেবনবিধৌ  ব্যাপারসম্পাদিনী 
                   তস্য  শ্রীপুরুষোত্তমস্য  চ  গৃহং  যত্নৈরকার্ষীত্ স্বয়ং ।। 

            অর্থাৎ  ১৬০০  শকাব্দের  ( ১৬৭৮  খ্রীষ্টাব্দের )  বৈশাখ  মাসে  শ্রীগোবিন্দের  পাদপদ্মসেবী  মহান  পুরুষ  রামদেব  যত্নের  সঙ্গে  শ্রীপুরুষোত্তমের  এ  মন্দির  নির্মাণ  করেছিলেন । লক্ষ্মীদেবী   তাঁর  পদসেবা  করতেন  এবং  তাঁর  উপাসনার  জন্য  রামদেব  এই  মন্দির  নির্মাণ  করেন ।  এখানে  শূন্য = ০ , নভ = ০ , ষড় = ৬  এবং  ইন্দু = ১  ধরে  অঙ্কের  বামাগতি  নিয়মানুসারে  প্রতিষ্ঠাকাল  ১৬০০  শকাব্দ ।  জানা  যায়  যে  এই  লক্ষ্মীদেবী  রামদেবের  বিধবা  কন্যা  ( মতান্তরে  শিষ্যা ) ছিলেন ।

            এক  সময়ে  এই  মন্দির  ও  বিগ্রহ  নদিয়া  রাজবংশের  অধীন  ছিল।  নদিয়া  রাজবংশ  কর্তৃক  প্রদত্ত  দেবোত্তর  সম্পত্তির  আয়  খেকে  বিগ্রহের  নিত্যপূজা  ও  পার্বণাদি  অনুষ্ঠিত  হত।  তাই  আগে  বারদোলের  মেলায়  এই  বিগ্রহ  কৃষ্ণনগরে  নিয়ে  যাওয়া  হত । তবে  অনেক  দিন  হল  বিগ্রহ  আর  কৃষ্ণনগরে  পাঠানো  হয়  না ।

            ইঁটের  তৈরী  মন্দিরটি  পশ্চিমমুখী ।  উল্লেখ্য,  মন্দিরের  পশিম  দিকে  রাস্তা ।   সামনের  দোচালাটির  দেওয়াল  পলেস্তারা  আবৃত ।  শোনা  যায়,  আগে  সামনের  দেওয়াল  টেরাকোটা  অলংকারে  অলংকৃত  ছিল ।  বর্তমানে  পিছনের  দোচালাটির ( গর্ভগৃহের )  প্রবেশপথের  সামনের  দেওয়ালে  পোড়ামাটির  অলংকরণ  দেখা  যায় ।  তবে  রঙের  প্রলেপে  তা  অনেকটাই  ম্লান ।  টেরাকোটাগুলির  মধ্যে  উল্লেখ্য  চারটি  মূর্তির  দুটি  চতুর্ভুজ  শ্রীকৃষ্ণ  এবং  অপর  দুটি  রাজ  কর্মচারী  বা  রাজার ।  এই  চারটি  মূর্তি  দুটি  দুটি  করে  প্রবেশ-পথের  দুদিকের  দেওয়ালের  নিচের  দিকে অবস্থিত ।  এ  ছাড়া  মেঝের  ঠিক  উপরের  দেওয়ালে  হংসশ্রেণী ।  খিলানের  চতুর্দিকে  সাতটি  করে  দুপাশে  চোদ্দটি  প্রতীক  আটচালা  শিবালয়  ও  তার  মধ্যে  শিবলিঙ্গ । পোড়ামাটির  কয়েকটি  ফুল  ও  অন্যান্য  নকশাও  দেখা  যায় ।  মন্দিরে  কষ্টিপাথরের  কৃষ্ণরায়  নিত্য  পূজিত ।  এখানে  কৃষ্ণ  বিগ্রহ  একক ।  কোন  রাধিকা  মূর্তি  নেই ।  এ  সম্পর্কে  শ্রী  কুমুদনাথ  মল্লিকের  'নদিয়া  কাহিনী'  গ্রন্থে  পাই,  " কথিত  আছে  কোনও  সময়ে  ঠাকুরাণীর  গাত্র  হইতে  যবন  জাতীয়  চৌরে  অলঙ্কার  অপহরণ  করিলে  পূজারি তাঁহাকে  মন্দির  সন্নিহিত  দীর্ঘিকায়  বিসর্জ্জন  দেন,  তদবধি  ঠাকুরের  অদৃষ্টে  আর  দেবী  মিলে  নাই । " 

            মন্দিরের  সামনে  একটি  নবনির্মিত  নাটমন্দির  আছে ।  মন্দিরের  ও  নাটমন্দিরের  মেঝে  শ্বেতপাথর  দিয়ে  তৈরি ।  মন্দিরের  কিছু  দূরে  চাতর  বাজারের  কাছে  একটি  নবনির্মিত  দোলমঞ্চে ( পুরানোটি  বিনষ্ট  ) দোলের  সময়  বিগ্রহ  রেখে  দোল   উৎসব  পালন  করা  হয় ।  এ  ছাড়া  ঝুলন, রথযাত্রা, জন্মাষ্টমী, রাখি,  স্নানযাত্রা  ও  মাঘী  পূর্ণিমায়  উৎসব  অনুষ্ঠিত  হয় ।  মাঘী  পূর্ণিমার  উৎসবটি  জাঁকজমক  সহকারে  পালন  করা  হয় । 

            তেহট্টের  কৃষ্ণরায়  মন্দিরে  যেতে  হলে  শিয়ালদহ  থেকে  লালগোলা  প্যাসেঞ্জার  বা  কৃষ্ণনগর  লোকালে  উঠুন ।  নামুন  কৃষ্ণনগরে ।  স্টেশন  থেকে  রিকশায়  বা  টোটোতে  বাসস্ট্যান্ড ।  বাসস্ট্যান্ড  থেকে  শিকারপুর, করিমপুর  বা  পাটিকাবাড়ি  গামী  বাসে  উঠুন ।  নামুন  তেহট্টের  P. W. D .  মোড়ে ।  সেখান  থেকে  টোটোতে  হাসপাতাল  রোড  ধরে   মন্দির ।  কলকাতা  থেকে  বাসে  বা  গাড়িতেও  যেতে  পারেন ।  দুপুরে  ১২ টা  থেকে  ৪ টে  পর্যন্ত  মন্দির  বন্ধ  থাকে । 


মন্দিরের  ফটক 

নাটমন্দির  ও  মন্দির 

নাটমন্দির ( আংশিক ) ও  মন্দির 

মন্দির  ( দক্ষিণ  দিক  থেকে  )

মন্দির ( সামনের  দিক  থেকে )

  মন্দির (নাটমন্দির  থেকে )

মন্দিরের  প্রতিষ্ঠা-ফলক 

গর্ভগৃহের  সামনের  দেওয়ালের  টেরাকোটার  কাজ 

চতুর্ভুজ  শ্রীকৃষ্ণ, রাজ  কর্মচারী  বা রাজা  ও অন্যান্য  টেরাকোটার চিত্র 

টেরাকোটার  নকশা  

বাতিদান 

কৃষ্ণরায়  জিউ  বিগ্রহ -- ১

কৃষ্ণরায়  জিউ  বিগ্রহ -- ২

দোলমঞ্চ 

 
 সহায়ক  গ্রন্থাবলি  :
        ১.  বাংলার  মন্দির  স্থাপত্য  ও  ভাস্কর্য  :  প্রণব  রায় 
        ২.  নদিয়া  জেলার  পুরাকীর্তি মোহিত  রায়  (তথ্য-সংকলন  ও  গ্রন্থনা )
       ৩.  পশ্চিমবঙ্গের  পূজা-পার্বণ  ও  মেলা ( ২য়  খণ্ড ) :  অশোক  মিত্র  ( সম্পাদক )                      
              

Wednesday, November 25, 2015

Harihar Temple, Gangabas, Amghata, Nadia

  

                হরিহর  মন্দির,  গঙ্গাবাস,  আমঘাটা,  নদিয়া                              

                                             শ্যামল  কুমার  ঘোষ
            শিয়ালদহ-কৃষ্ণনগর  রেলপথে  কৃষ্ণনগর  শেষ  স্টেশন ।  কলকাতা  থেকে  দূরত্ব  ৯৯ কি. মি. ।  কৃষ্ণনগর  থেকে  ৮ কি. মি.  দূরে  আমঘাটা  ( এখানে  ওই  নামে  পূর্বের  কৃষ্ণনগর-নবদ্বীপঘাট  ন্যারো  গেজ  রেলপথের  একটি  স্টেশন  আছে ।  বর্তমানে  রেলপথটি  ব্রড  গেজে  পরিবর্তনের  কাজ  চলছে  ) । আমঘাটা  স্টেশনের  ১ কি. মি.  দূরে  গঙ্গাবাস  গ্রাম ।  এই  গ্রামের  পাশ  দিয়ে  অলকানন্দা  নদী  প্রবাহিত ।  অলকানন্দা  জলঙ্গীর  শাখা  নদী  হয়ে  ভাগীরথীতে  মিশেছে ।  তাই  অলকানন্দায়  প্রবাহিত  জল  গঙ্গারই  পবিত্র  জল  এই  জ্ঞানে  কৃষ্ণনগরের  মহারাজা  কৃষ্ণচন্দ্র  প্রবীণ  বয়সে  জ্যেষ্ঠ্য  পুত্র  শিবচন্দ্রকে  নিজ  জমিদারির  ভার  অর্পণ  করে  গঙ্গা-বাসের  জন্য  এখানে  একটি  প্রাসাদ  নির্মাণ  করেন  এবং  জায়গাটির  নাম  দেন  গঙ্গাবাস ।  সেই  সময়  পৌষসংক্রান্তি,  বারুণী  ও  দশহরা  উপলক্ষ্য  পুণ্যস্নানের  জন্য  এখানে  বহু  লোকের  সমাগম  হত । অবশ্য  কৃষ্ণচন্দ্র  নির্মিত  সেই  প্রাসাদের  কোন  চিহ্ন  এখন  আর  নেই ।  আর  স্রোতস্বিনী  অলকানন্দাও  এখন  রুদ্ধ ।  এখানেই  তিনি  বাংলা  ১১৮৯  সনের  ২২ শে  আষাঢ়  ( ১৭৮২  খ্রীষ্টাব্দে )  ৭৩  বৎসর  বয়সে  পরলোকগমন  করেন ।   এই  নদী  তীরে  কৃষ্ণচন্দ্র  ১৬৯৮ শকাব্দে  ( ১৭৭৬  খ্রীষ্টাব্দে )  ইঁটের  তৈরি  হরিহরের  মন্দির  নির্মাণ  করেন ।  মন্দিরটির  গড়ন  অভিনব ।  একটি  সমতল  ছাদ  দালানের  উপর  দুটি  পিরামিড  আকৃতির  চারচালা  শিখর ।  দক্ষিণমুখী  মন্দিরে  হরিহরের   চতুর্ভুজ  প্রস্তরবিগ্রহ ( একই  বিগ্রহে  হরি  ও  হর  প্রকাশিত )  প্রতিষ্ঠিত ।  মূর্তিটির   এক  হাতে   চক্র ও  অন্য  হাতে  ত্রিশূল ।  কৃষ্ণচন্দ্র  হরি  ও  হরের  অভেদ  রূপ  প্রতিপাদনের  জন্য  এই  বিগ্রহ  প্রতিষ্ঠা  করেন ।  মন্দিরের  দক্ষিণ  দিকে  মাটি-সংলগ্ন  পাদপিঠে  লাগানো  প্রস্তরফলকের  লিপি  নিম্নরূপ 

                 গঙ্গাবাসে  বিধিশ্রুত্যনুগতসুকৃতক্ষৌণিপালে  শক্যেম্মিন্ 
                 শ্রীযুক্তো  বাজপেয়ী  ভুবি  বিদিত  মহারাজরাজেন্দ্রদেবঃ ।   
                ভেত্তুং  ভ্রান্তিং  মুরারিত্রিপুরহরভিদামজ্ঞাতাং  পামরাণাং
                অদ্বৈতং  ব্রহ্মরূপং  হরিহরমুময়া  স্থাপয়োল্লনয়া  চ । । 

            শ্লোকটির  ভাবার্থ  এই,  ' যে  অজ্ঞ  শিব  ও  বিষ্ণুকে  পৃথক  পৃথক  মনে  করে  পরস্পরকে  বিদ্বেষ  করে,  তাদের  ভ্রান্তি  দূর  করার  জন্য  ভুবনবিখ্যাত  বাজপেয়ী  মহারাজেন্দ্রদেব ( মহারাজা  কৃষ্ণচন্দ্র ) ১৬৯৮ শকে  গঙ্গাবাসে  এই  মন্দির  ও  হরিহরের ব্রহ্মরূপ  অদ্বৈতমূর্তি  লক্ষ্মী  ও  উমার  সঙ্গে  স্থাপন  করলেন ।  এখানে  'বিধিশ্রুত্যনুগত' = ৮,  'সুকৃত' = ৯,  'ক্ষৌণিপাল'  ( চাঁদের  ষোল  কলা ) = ১৬  এই  অর্থ  ধরে  অঙ্কের  বামাগতি   নিয়মানুসারে  প্রতিষ্ঠাকাল  দাঁড়ায়  ১৬৯৮  শকাব্দ ।  ১৯৯৯  সালে  ভক্তিবেদান্ত  স্বামী  চ্যারিটি  ট্রাস্টের  উদ্যোগে  মন্দিরটির  সংস্কার  করা  হয় । 

            শোনা  যায়  যে  কৃষ্ণচন্দ্র  বিপুল  অর্থব্যয়  ও  পরিশ্রমে  চিত্রকুট  পর্বত  থেকে  শ্রীরামচন্দ্রের  প্রস্তর-পদচিহ্ন  এনে  এখানে  প্রতিষ্ঠা  করেছিলেন ।  সেটি  এখনও  এখানে  আছে ।  অনেকে  এটিকে  মহাবিষ্ণু  গদাধরের  পাদপদ্ম  বলে  থাকেন ।  

            হরিহর  ছাড়াও  কৃষ্ণচন্দ্র  এখানে  অন্যান্য  দেবদেবীর  মূর্তিও  প্রতিষ্ঠা  করেন ।  অন্নপূর্ণা   ও  মহালক্ষ্মী  মূর্তি  দুটি  আগে  অষ্টধাতুর  ছিল ।  সেগুলি  চুরি  যাওয়ায়  মাটির  মূর্তি  প্রতিষ্ঠা  করা  হয় ।  এ  ছাড়া  শীতলা,  বালগোপাল,  জগন্নাথ   ও  শিবলিঙ্গ  আছে ।   হরিহরের  মন্দিরের  পূর্ব  দিকে  আর  একটি  মন্দির  আছে ।  এটি  কালভৈরবের  মন্দির  নামে  পরিচিত ।  কালভৈরবের প্রস্তর  মূর্তি  চতুর্ভুজ ।  পিছনে  কুকুর ।   এই  মন্দিরে  হনুমান  ও   গণেশের  মূর্তিও  আছে ।  হরিহরসহ  সকল  বিগ্রহ  এখানে  নিত্য  পূজিত ।

            গঙ্গাবাসে  যেতে  হলে  শিয়ালদহ  থেকে  লালগোলা  প্যাসেঞ্জার  বা  কৃষ্ণনগর  লোকালে  উঠুন ।  নামুন  কৃষ্ণনগরে ।  স্টেশন  থেকে  নবদ্বীপঘাট  গামী  অটোতে  উঠে  পৌঁছে  যান  আমঘাটা ।  কৃষ্ণনগর  বাসস্ট্যাণ্ড  থেকে  বাসেও  যেতে  পারেন ।  আমঘাটা  স্টেশনের  পাশ  থেকে  ভ্যান  রিকশায়  উঠে  পৌঁছে  যান  গঙ্গাবাসের  মন্দিরে ।  আমঘাটার  দুটো  স্টপেজ  আগে  সুবর্ণবিহার ।  হরিহরের  মন্দির  দর্শন  করে  ওখানকার  রাধাকৃষ্ণের  মন্দিরও  দর্শন  করে  নিতে  পারেন । 

হরিহর  মন্দির,  গঙ্গাবাস 

মন্দিরের  শিখর   দেশ 

প্রস্তর-ফলক 

হরিহর  ও  অন্যান্য  বিগ্রহ 

হরিহর  বিগ্রহ 

কালভৈরবের  মন্দির 

হনুমান, গণেশ  ও  কালভৈরব  বিগ্রহ 

অলকানন্দা  নদী 


সহায়ক  গ্রন্থাবলি  :  
              ১. নদীয়া-কাহিনী  :  কুমুদনাথ  মল্লিক 
              ২. নদিয়া  জেলার  পুরাকীর্তি  :  মোহিত  রায়  ( তথ্য-সংকলন  ও  গ্রন্থনা )
              ৩. বাংলার  মন্দির  স্থাপত্য  ও  ভাস্কর্য  :  প্রণব  রায় 
              ৪. Nadia Gazetteer - Chapter XVI 

Saturday, November 7, 2015

Raghabeswar Shib Temple, Dignagar, Nadia

        রাঘবেশ্বর  শিব  মন্দির,  দিগনগর, নদিয়া                     

 শ্যামল  কুমার  ঘোষ


              শিয়ালদহ-কৃষ্ণনগর  রেলপথে  কৃষ্ণনগর  শেষ  স্টেশন ।  কলকাতা  থেকে  রেলপথে  দূরত্ব  ৯৯  কি. মি. ।  কৃষ্ণনগর  থেকে  ১১  কি. মি.  দূরে  ৩৪  নং  জাতীয়  সড়কের  পশ্চিম  দিকের  একটি  গ্রাম  দিগনগর ।  দিগনগরের  পূর্বের  নাম  ছিল  দীর্ঘিকানগর । 

              নদিয়ারাজ-প্রতিষ্ঠাতা  ভবানন্দ  মজুমদারের  পৌত্র (  কৃষ্ণচন্দ্রের  বৃদ্ধপ্রপিতামহ )  রাজা  রাঘব  রায়  মাটিয়ারী  থেকে  রেউই-এ  (বর্তমান  কৃষ্ণনগর )  রাজধানী  স্থানান্তরিত  করার  পর,  কৃষ্ণনগর  থেকে   শান্তিপুর  পর্যন্ত  একটি  রাস্তা  তৈরি  করেন  এবং  জনসাধারণের  জলকষ্ট  নিবারণের  জন্য  ২০  হাজার  টাকা  ব্যয়ে  বর্তমান  দিগনগরে  এক  বিশাল  দিঘি  খনন  করেন ।  দিঘি  বা  দীর্ঘিকা  থেকে  স্থানের  নাম  হয়  দীর্ঘিকানগর । দিঘির  পূর্ব  দিকে  রাজা  রাঘব  একটি  সুন্দর  অট্টালিকা  ও  কাছাকাছি  দুটি  মন্দির  নির্মাণ  করেন ।  একটি  মন্দির  বর্তমানে  বিধ্বস্ত ।  অপরটি  এখনও  মোটামুটি  ভাল  অবস্থায়  আছে।  এটি  নদিয়া  জেলার  টেরাকোটা  মন্দিরগুলির  মধ্যে  অন্যতম।  মন্দিরে   ব্ল্যাক  বেসল্টের  তৈরী  'রাঘবেশ্বর'  শিবলিঙ্গ  নিত্য  পূজিত ।  মন্দিরটি  একটি  উঁচু  ভিত্তি  বেদির  উপর  স্থাপিত ।  বাংলা  চারচালা  রীতিতে  তৈরী  মন্দিরটিতে  দক্ষিণ,  পূর্ব  ও  পশ্চিম  দিকে  মোট  তিনটি  দরজা ।  দরজার  দুপাশে  দুটি  করে  ছোট  ছোট  থাম  এবং  একটি  করে  কারুকার্য  করা  খিলান। 



রাঘবেশ্বর  শিবমন্দির

              মন্দিরের  পশ্চিমের  দেওয়ালে  বাঁকানো  কার্নিসের  নিচে  শ্লেট  পাথরে  উৎকীর্ণ  প্রতিষ্ঠা-লিপিটি  নিম্নরূপ : 

             
              শ্লোকটির  অর্থ  হল,  ১৫৯১  শকে  ( ১৬৬৯ খ্রীষ্টাব্দে )  পবিত্র  রত্নাকরসদৃশ,  দ্বিজশ্রেষ্ঠ,  ভূমিপালকের  প্রধান  ও  ধীরস্বভাব  শ্রীযুত  রাঘব  স্বচ্ছতরঙ্গমালা  ও  নির্মল  জলের  ধারা  সমুজ্জ্বল  দিঘি  খনন  করে  তার  তীরে  সুরম্য  মন্দিরে  শিবকে  প্রতিষ্ঠা  করেন ।  এখানে  সোম = ১,  নব = ৯, ইষু ( বাণ )=৫  এবং  চন্দ্র = ১  ধরে  অঙ্কের  বামাগতি  নিয়মে  প্রতিষ্ঠাকাল  ১৫৯১  শকাব্দ । 
              
              এই  মন্দিরে  টেরাকোটা  অলংকরণগুলির  আধিক্য  পশ্চিম  দেওয়ালে  ( উল্লেখ  করা  যেতে  পারে  যে  মন্দিরের  পশ্চিম  দিকে  রাস্তা ), তারপর  দক্ষিণ  দেওয়ালে ।  পূর্ব  দিকের  দেওয়ালে  কিছু  ফুল  ছাড়া  অন্য  টেরাকোটা  নেই  এবং  দেওয়ালের  খিলানটিও  বর্তমানে  ভগ্ন ।  উত্তর  দিকের  দেওয়াল  পলস্তারা  আবৃত ।  ভিত্তিবেদি-সংলগ্ন  দুটি  অনুভূমিক  সারির  নিচের  সারিতে  টেরাকোটায়  জমিদার  বা  রাজার  শিবিকারোহণে  যাত্রা  এবং  সামনে-পিছনে  ঘোড়সওয়ার  ও  লোকলস্কর,  অশ্বারোহী  শিকারী,  খোল-করতাল  সহযোগে  হরিনাম  সংকীর্তন,  হাতির  পিঠে  সওয়ার,  মিথুনদৃশ্য,  গড়গড়ায়  তামাক  সেবন  প্রভৃতি  সমাজচিত্র   উৎকীর্ণ  আছে । উপরের  সারিতে  একটানা  হংস পংক্তির   দৃশ্য ।  পশ্চিম  দিকের  প্রবেশ  পথের  খিলানের  ওপরের  চারপাশে  আটচালা  প্রতীক   শিবালয়  ও  তারমধ্যে  শিবলিঙ্গ ।  লক্ষণীয়  হল,  দক্ষিণদিকের  দেওয়ালে  দ্বারপথের  খিলানের  ওপরের   চারপাশে   আটচালা  প্রতীক  মন্দিরের  মধ্যে  মাত্র  দুটি  শিবলিঙ্গ  বাকি  সব  মুসলমান  যোদ্ধা ।  প্রবেশ  পথের  উপরে  ও  দুপাশে  কুলঙ্গিতে  নিবদ্ধ  দুই  সারি  মূর্তির  মধ্যে  দশাবতার,  কৃষ্ণলীলার  বিভিন্ন  দৃশ্য  যথা  কৃষ্ণরাধিকা, বস্ত্রহরণ,  কালীয়দমন  প্রভৃতিই  প্রধান ।  এছাড়া  রাম, বলরাম,  বৃষবাহন  শিব,  প্রহরী,  সৈনিক,  সন্ন্যাসী  প্রভৃতি  মূর্তির  সমারোহ ।  একটি  ফলকে  ডানপায়ের  ওপর  বাঁ  পা  রেখে  দণ্ডায়মান  এক  নারীমূর্তি ।  তার  পাশে  একটি  হরিণশিশু ।  যার  পোশাকি  নাম  'শালভঞ্জিকা'।  এ  মন্দিরে  বিশেষত্ব  হল,  প্রচুর  উৎকৃষ্ট  নকশি  কাজ,  যা  নদিয়ার  খুব  কম  মন্দিরেই  দেখা  যায় ।  মন্দিরের  পোড়ামাটির  মূর্তিগুলির  সুক্ষ্ম  কাজ  এই  শতকে  নির্মিত  ভাস্কর্যকলার  বৈশিষ্ট  বহন  করে ।  আরেকটি  উল্লেখযোগ্য  হল,  প্রবেশপথের  নিচে  চৌকাঠ  হিসাবে  মোটা  ও  ভারী  কাল  পাথরের  ব্যবহার ।  বর্তমানে  মন্দিরটি  পশ্চিমবঙ্গ  সরকার  কর্তৃক  সংরক্ষিত । 

              দিগনগরে  রবীন্দ্রনাথের  দিদি  থাকতেন ।  তাঁর  বড়  বোন  সৌদামিনীর  সঙ্গে  এখানকার  যাদবচন্দ্র  গঙ্গোপাধ্যায়ের  পুত্র  সারদাপ্রসাদের  বিবাহ  হয় ।  রবীন্দ্রনাথ  এখানে  কয়েকবার  এসেছিলেন ।

              দিগনগরে  যেতে  হলে  শিয়ালদহ  থেকে  লালগোলা  প্যাসেঞ্জার  বা  কৃষ্ণনগর  লোকালে  উঠুন ।  নামুন  কৃষ্ণনগরে ।  স্টেশন  থেকে  বাসে  বা  রিকশায়  বাসস্ট্যাণ্ডে  পৌঁছান ।  সেখান  থেকে  শান্তিপুরগামী  বাসে  পৌঁছে  যান  দিগনগরে ।  স্টপেজ  থেকে  পশ্চিম  দিকে  কিছুটা  হাঁটলে  পৌঁছে  যাবেন  মন্দিরে ।
     
  
রাঘবেশ্বর  শিবমন্দিরের  মাঝের  অংশ 

শিবমন্দিরের  শিখর  দেশ 

পশ্চিম  দিকের  দরজার  উপর  খিলান 

দক্ষিণ  দিকের  দরজা 

দক্ষিণ  দিকের  দরজার  উপর  খিলান 

রাঘবেশ্বর  শিবমন্দিরের  প্রতিষ্ঠাফলক 

ভিত্তিবেদি-সংলগ্ন  টেরাকোটায়  সমাজচিত্র - ১

ভিত্তিবেদি-সংলগ্ন  টেরাকোটায়  সমাজচিত্র - ২

ভিত্তিবেদি-সংলগ্ন  টেরাকোটায়  সমাজচিত্র - ৩

ভিত্তিবেদি-সংলগ্ন  টেরাকোটায়  সমাজচিত্র - ৪

মন্দিরের  একদিকের  কোনাচ 

কোনাচের  টেরাকোটার  অলংকরণ 

কুলুঙ্গিতে  নিবদ্ধ  টেরাকোটার  অলংকরণ -১ 

কুলুঙ্গিতে  নিবদ্ধ  টেরাকোটার  অলংকরণ - ২ 

কুলুঙ্গিতে  নিবদ্ধ  টেরাকোটার  অলংকরণ -৩

কুলুঙ্গিতে  নিবদ্ধ  টেরাকোটার  অলংকরণ - ৪

কুলুঙ্গিতে  নিবদ্ধ  টেরাকোটার  অলংকরণ - ৫

কুলুঙ্গিতে  নিবদ্ধ  টেরাকোটার  অলংকরণ - ৬

কুলুঙ্গিতে  নিবদ্ধ  টেরাকোটার  অলংকরণ - ৭

কুলুঙ্গিতে  নিবদ্ধ  টেরাকোটার  অলংকরণ - ৮

কুলুঙ্গিতে  নিবদ্ধ  টেরাকোটার  অলংকরণ - ৯

কুলুঙ্গিতে  নিবদ্ধ  টেরাকোটার  অলংকরণ - ১০

কুলুঙ্গিতে  নিবদ্ধ  টেরাকোটার  অলংকরণ - ১১

রাঘবেশ্বর  শিবলিঙ্গ 


 সহায়ক  গ্রন্থাবলি  :
        ১.  বাংলার  মন্দির  স্থাপত্য  ও  ভাস্কর্য  :  প্রণব  রায় 
        ২.  নদিয়া  জেলার  পুরাকীর্তি মোহিত  রায়  (তথ্য-সংকলন  ও  গ্রন্থনা )